Header Border

ঢাকা, রবিবার, ২৫শে অক্টোবর, ২০২০ ইং | ৯ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল) ৩০°সে
Headline :
পুলিশ সুপারের পক্ষে আত্মসমর্পণকারী ৯৬ জন জলদস্যু পরিবারকে ত্রাণ বিতরণ করলেন মহেশখালী পুলিশ! করোনা পরিস্থিতিতে কক্সবাজার শহরে দুই হাজার কর্মহীন মানুষের মাঝে এমপি কমলের চাল বিতরণ স্থানীয় ও রোহিঙ্গাদের জন্য বিশ্বব্যাংকের ৩৫ কোটি ডলার শ্রমজীবী অসহায় মানুষের পাশে দ্বিতীয় দিনে “দুর্যোগে মানবিক প্রয়াস” নাইক্ষ্যংছড়ি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন করোনা পরিস্থিতিতে হতদরিদ্র শ্রমজীবি ২ হাজার মানুষের মাঝে এমপি কমলের ত্রাণ বিতরণ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নুর জোহার হত্যা মামলার প্রধান আসামী গ্রেফতার, ঘটনার স্বীকারোক্তি কল পেলেই বিনামূল্যে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেবে কক্সবাজার পুলিশ করোনায় মিনিটে মারা যাচ্ছেন প্রায় ১০ জন লকডাউন-সীমান্তের কড়াকড়ি প্রেমে বাধা হতে পারেনি প্রবীণ দম্পতির চকরিয়ায় অসহায় ও কর্মহীন মানুষের বাড়িতে নিজস্ব অর্থায়নে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন কাউন্সিলর জিয়াবুল

লকডাউন-সীমান্তের কড়াকড়ি প্রেমে বাধা হতে পারেনি প্রবীণ দম্পতির

অনলাইন ডেস্ক,

এক বয়স্ক দম্পতি করোনাভাইরাস লকডাউনের মধ্যেও সীমান্তের দুই দিকের দুই দেশ থেকে প্রতিদিন যেভাবে দেখা-সাক্ষা‌ৎ করছেন সেটি তাদের রীতিমত স্থানীয় তারকায় পরিণত করেছে।

পঁচাশী বছর বয়সী ইনগা রাসমুসেন থাকেন ডেনমার্কে। আর ৮৯ বছর বয়সী কার্স্টেন টুচসেন হ্যানসেন থাকেন জার্মানিতে। এই লকডাউনের মধ্যেও তারা প্রতিদিন সীমান্ত শহর আভেনটফটে এসে দেখা করেন। গল্প করেন, পানাহার করেন। তবে অবশ্যই নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে।
করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর জার্মানি এবং ডেনমার্ক তাদের সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছিল প্রায় দুই সপ্তাহ আগে। জার্মানিতে পরীক্ষা করে নিশ্চিত হওয়া গেছে এমন করোনাভাইরাস রোগীর সংখ্যা ৬৩ হাজার। অন্যদিকে ডেনমার্কে এই সংখ্যা ২ হাজার ৫শ।

ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে যে ভিসাবিহীন চলাচলের ব্যবস্থা চালু আছে, তার ফলে প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্য সীমান্ত প্রায় উঠেই গিয়েছিল। কিন্তু করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে সীমান্ত আবার ফিরে আসছে। কোন কোন ক্ষেত্রে প্রায় ২৫ বছর পর।
কিন্তু এই প্রবীণ দম্পতির ভালোবাসাকে আটকাতে পারেনি এই বিশ্বমহামারী।
stay home stay safe
জার্মানির সম্প্রচার প্রতিষ্ঠান ডয়েচে ভেলেকে দেয়া এক সাক্ষা‌কারে মিজ রাসমুসেন বলেন, এটা খুবই খারাপ, কিন্তু আমরা তো এটা বদলাতে পারবো না।
সীমান্তের দুই দিকে নিরাপদ দূরত্বে বসে থাকা এই দম্পতিকে দেখতে পেয়েছিলেন নিকটবর্তী শহর টন্ডের এর মেয়র। তিনি তখন বাইক চালিয়ে সেই পথে যাচ্ছিলেন।
এ প্রবীণ দম্পতির প্রথম দেখা হয়েছিল দু’বছর আগে। গত এক বছর ধরে তারা প্রায় প্রতিদিন দেখা করে একসঙ্গে সময় কাটিয়েছেন। মিজ রাসমুসেন থাকেন ডেনমার্কের দিকের শহর গেলেহাসে। অন্যদিক মি. হ্যানসেন থাকেন জার্মান শহর সাডারলাগামে।
যখন মি. হ্যানসেন দেখা করতে আসেন তখন কখনো সাথে নিয়ে আসেন এক বোতল লেমনেড, তবে মিজ রাসমুসেন কফিতেই আসক্ত বেশি। কারণ তাকে গাড়ি চালিয়ে সেখানে আসতে হয়, একটি ড্যানিশ সংবাদপত্রকে দেয়া সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন তিনি।
মিজ রাসমুসেন এবং মি. হ্যানসেন এক সঙ্গে বেড়াতেও গেছেন আগে। পরিস্থিতি যখন স্বাভাবিক হবে, তখন তারা আবার এক সঙ্গে বেড়াতে যাবেন বলে পরিকল্পনা করছেন।
করোনাভাইরাসের বিশ্বমহামারী বিশ্বজুড়ে মানুষের স্বাভাবিক জীবনে বিরাট উলট-পালট ঘটিয়ে দিয়েছে। কিন্তু এই দুজন তার মধ্যেই নিজেদের সম্পর্ক আর ভালোবাসা সজীব রাখার অভিনব উপায় খুঁজে বের করেছেন।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

স্থানীয় ও রোহিঙ্গাদের জন্য বিশ্বব্যাংকের ৩৫ কোটি ডলার
করোনায় মিনিটে মারা যাচ্ছেন প্রায় ১০ জন
অবশেষে খোঁজ মিলল তার, যার শরীর থেকে সারা বিশ্বে ছড়িয়েছে করোনা
কোনভাবেই ভাইরাসের লাগাম টানা যাচ্ছে না, বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল
ফিলিপাইনে করোনা মোকাবেলায় ব্যবহৃত বিমানে আগুন, ৮ জন নিহত
২০ সুন্দরী নিয়ে হোটেলে কোয়ারেন্টাইনে থাই রাজা

আরও খবর

Design & Developed BY GS Technology